image description

Art village Natungram

কাটোয়া লাইনের ছোট্ট স্টেশন অগ্রদ্বীপ। মেল/এক্সপ্রেস ট্রেন দাঁড়ায় না, শুধুমাত্র লোকাল আর প্যাসেঞ্জার থামে কয়েক সেকেন্ডের জন্য। হাওড়া থেকে প্রায় তিন ঘন্টা সময় লাগে লোকালে। স্টেশন থেকে রিক্সা/অটো(অটোয় কিন্তু প্রচুর ভিড় হয়) বা পায়ে হেঁটে দেড় কিলোমিটার গেলেই নতুনগ্রাম। স্থানীয় লোকজন বলেন মিস্ত্রিপাড়া। এখানেই কয়েক পুরুষ ধরে লক্ষণ ভাস্করের পরিবারের মতো আরো কিছু পরিবার সৃষ্টি করে চলেছে এই অসাধারণ শিল্প। এঁরা বহুদিন ধরে মূলতঃ কাঠের প্যাঁচা, রাজা রানী এবং গৌর নিতাই তৈরি করলেও বর্তমানে আরো বিভিন্ন ধরনের মূর্তি এবং ছোটখাটো আসবাব ইত্যাদিও তৈরি করছেন। সামান্য বাটালি জাতীয় যন্ত্রের সাহায্যে এঁরা বছরের পর বছর ধরে কাজ করে আসছেন। 
সঙ্গের ছবিতে লক্ষণ এবং তাঁর কিছু কাজের নিদর্শন দেওয়ার চেষ্টা করলাম। 



কোলকাতাসহ রাজ্যের বিভিন্ন মেলায় লক্ষণ এবং তাঁর গ্রামের অন্যান্য শিল্পীরা নিজেদের হাতের কাজ নিয়ে যান। ভারতের অনেক বাড়িতেই ওঁদের শিল্প স্থান করে নিয়েছে।
স্থান : নতুনগ্রাম, জেলা : পূর্ব বর্ধমান
লক্ষণ ভাস্কর : 9593055817

থাকা খাওয়া : শিল্পী সমিতির নিজস্ব একটি ঘরে বাইরে থেকে আসা অতিথির মাথা গোঁজার ব্যবস্থা হয়ে যায়। 
তাছাড়া, কাটোয়া শহরে (১৪কিলোমিটার) নানা মানের হোটেল ও লজ আছে, অগ্রিম বুকিং না করলেও জায়গা পাওয়া যাবে(শুধুমাত্র কার্তিক পুজোর সময়ে অগ্রিম বুকিং করে যাওয়াই ভালো) । 
১১কিলোমিটার দূরে সিঙ্গি গ্রামে আছে শান্তিনিকেতন হোমস্টে। 
নতুনগ্রামসহ আশেপাশের যে কোনো জায়গার তথ্যের জন্য যোগাযোগ করতে পারেন : 7044791436 নম্বরে। সাহায্য করতে পারলে খুশি হবো। 
ধন্যবাদ